মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০২:৩৯ অপরাহ্ন

ধর্মপাশায় সেচ প্রকল্পে বাধা: শতাধিক একর জমি আবাদে অনিশ্চয়তার আশঙ্কা

ধর্মপাশায় সেচ প্রকল্পে বাধা: শতাধিক একর জমি আবাদে অনিশ্চয়তার আশঙ্কা

ধর্মপাশা প্রতিনিধিঃ ধর্মপাশা উপজেলার পাইকুরাটি ইউনিয়নের ভাটগাঁও গ্রামের পাশের হাওরে অগভীর নলকূপ দ্ধারা স্থাপিত সেচ প্রকল্পটি চালাতে বাধা দিচরছেন বলে স্থানীয় মাসুক মিয়া, মোকলেছ মিয়া, পলাশ মিয়াসহ ৪ জনের বিরুদ্ধ অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এতে করে চলতি বোরো মৌসুমে ওই সেচ প্রকল্পের আধিনে থাকা এলাকার কৃষকের প্রায় শতাধিক একর জমিতে বোরো আবাদ ব্যহত হওয়ার আশঙ্কা করছেন এলাকার কৃষকেরা।
এ ব্যাপারে কৃ্ষক সেলিম তালুকদারের পক্ষ থেকে উপলেলা সেচ কমিটি ও উপজেলা প্রশাসনের কাছে অভিযোগ দায়ের করা হলেও বিষয়টি নিয়ে কোন ধরনের সুরাহা না হওয়ায় এলাকার কৃ্ষকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।
জানা গেছে, উপজেলার ভাটগাঁও গ্রামের পাশের কুম্ভুরিয়া নামক হাওরে থাকা এলাকার কৃষকের প্রায় শতাধিক একর পতিত জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যে ভাটগাঁও গ্রামের কৃষক সেলিম তালুকদারের আবেদনের প্রেক্ষিতে উপজেলা প্রশাসন ও সেচ কমিটি কৃর্তৃক এখানে একটি সেচ প্রকল্প করার জন্য অনুমোদন দেওয়া হয়।
এরই প্রেক্ষিতে নেত্রকোনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি থেকে ওই মাঠে বিদ্যুতের সাতটি খুঁটি স্থাপন করে এবং এখানে একটি অগভীর নলকূপে স্থাপন করা হয়। এ পর্যন্ত ওই সেচ প্রকল্পটি স্থাপন করতে কৃষক সেলিম তালুকদারেরর পক্ষ থেকে প্রায় ৫ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে বলে দাবী করেন কৃষক সেলিম তালুকদার । কিন্তু তাদের এ সেচ প্রকল্পটি স্থাপনের পরপরই একই গ্রামের মাসুক মিয়া, মোকলেছ মিয়া, পলাশসহ ৪ জনের নেতৃত্বে ওই প্রকল্পের সেচে কাজে বাধাসহ তাদেরকে নানা ভাবে হুমকি দিয়ে আসছেন। এমনকি তারা ওই প্রকল্পের প্রায় ৫০ গজের মধ্যে বাঁশে খুঁটি বসিয়ে রাতারাতি অবৈধভাবে আরো একটি অগভীর নলকূপ স্থাপন করেন। ফলে ওই প্রকল্পর আওতাধীনে থাকা এলাকার কৃষকের প্রায় শতাধিক একর জমি আবাদ করতে চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়েছেন শতাধিক কৃষক।
অভিযুক্ত মাসুক মিয়ার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তার ফোনটি বন্ধ থাকায় এব্যাপারে তার সাথে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. নাজমুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত নই। তবে এ বিষয়টি নিয়ে আগামি মিটিংয়ে কথা বলব।
নেত্রকোনা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির মোহনগঞ্জ জ্যোনাল অফিসের ডিজিএম আবুল কালাম আজাদ বলেন, এ বিষয়ে আমার কাছে কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
ধর্মপাশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মুনতাসির হাসান বলেন, অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করার জন্য আমি গত মঙ্গলবার ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এসেছি এবং বিষয়টি খতিয়ে দেখে এ ব্যপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুন




 

 

 

 

© 2017-2022 All Rights Reserved Amadersunamganj.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!