মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০১:২২ পূর্বাহ্ন

মৃত্যুকাল : জেনারুল ইসলাম

মৃত্যুকাল : জেনারুল ইসলাম

চারদিকে মানুষের সমালোচনা আর ঘৃণার বারুদ জ্বলছে। সহমর্মিতা কিংবা সমবেদনার লেশ মাত্র নেই কোথাও! এ যেন এক নৃশংস পরিস্থিতি!
অথচ এমন রাজনৈতিক নেতার মৃত্যুতে শোকের বারতা বয়ে যাওয়ার কথা। বলছিলাম আমাদের প্রদেশের মূখ্যমন্ত্রী আসলাম খানের কথা। এক সময়কার তুখোর ছাত্রনেতা। বর্তমানে নিজ দলীয় উপদেষ্টা।
গতকাল সন্ধ্যায় আসলাম খানের মৃত্যু হয়েছে।
সপ্তাহখানেক আগে দলীয় কার্যালয়ে হঠাৎ স্ট্রোক করেন মূখ্যমন্ত্রী আসলাম খান। তারপর থেকে বেসরকারী ক্লিনিকের আইসিইউতে ভর্তি। এক সময়কার তুমুল জনপ্রিয়তা আর জনগণের ভালোবাসা নিয়ে নির্বাচিত হওয়া এই নেতা আজ মৃত্যুকালে মানুষের ধিক্কার আর ঘৃণা পাচ্ছে। এ যেন এই প্রবীণ নেতার কর্মফল।
এই প্রদেশের মূখ্যমন্ত্রী থাকাকালে প্রদেশের প্রতিটা খাতে ব্যাপক দুর্নীতি আর স্বজনপ্রীতিতে ধ্বংস করে দিয়েছেন।
আজ বেসরকারি ক্লিনিকে তাঁর চিকিৎসা করানো হচ্ছে অথচ সরকারী হাসপাতালগুলোতে যে বাজেট বরাদ্দ ছিলো তা যদি উন্নয়নের কাজে লাগানো হতো তবে এমন দিন দেখতে হতো না।
মিডিয়া পাড়ায় ব্যাপক আলোচনা হচ্ছে!
স্টুডিওর টকশো টেবিলে গরম চায়ের সাথে গরম বক্তৃতা আর বেসুরের সহমর্মিতার রেশ পৌঁছে যাচ্ছে বুড়িগঙ্গার বিষাক্ত কালো জলের স্রোতে।
শুন্য হওয়া রকিং চেয়ারটা বেসামাল,তাল -মাতাল হয়ে দোল খাচ্ছে।
চতুর্থ জানাজার নামাজ শেষে লাশ দাফন করা হবে কেন্দ্রীয় সরকারী গোরস্থানে। জীবিতাবস্থায় গ্রামের বাড়িতে খুব বেশি যান নি এই নেতা। আজ তার লাশও যায় নি।
শহুরে জীবনে আভিজাত্যের মায়ায় নাড়ী আর গ্রামকে ভুলে যেতে বসেছিলেন। অবশ্য ভুলে যাবারই কথা।
লাশ কেন্দ্রীয় সরকারী গোরস্থানের প্রাঙ্গণে চলে এসেছে।
মিডিয়া কর্মীদের তোলপাড়।
ক্যামেরার ফ্ল্যাশলাইট আর উপস্থাপনার ঝড় উঠছে।
এখানে মৃত্যু মানে উৎসবের আমেজ। সবার হাতে লাল লাল ফুল। সহকর্মী,সহযোদ্ধারা চলে আসছেন সেঁজেগুজে মিডিয়ার সামনে।
মিডিয়াতে কথা বলছেন সাবেক মন্ত্রী মহোদয়
টাইমটিভির সাংবাদিক প্রশ্ন করছেন
– নেতার অকাল প্রয়াণে আপনাদের কি অনুভূতি? আপনার দলের যে শুণ্যতা হলো তা কীভাবে পূরণ করবেন?
ক্যামেরার সামনেই টিস্যুতে চোখ মুছে মন্ত্রী মহোদয়। মূখ্যমন্ত্রী জসিম খানের অনুপস্থিতিতে সবচেয়ে লাভবান যিনি হবেন তিনি মন্ত্রীমহোদয়। মূখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পেতে আর কোন বাঁধাই রইলো না। যদিও তিনি ভিতরে ভিতরে পদাকাঙ্ক্ষা লোভে হাসছেন। তবুও সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তরে খুব গুছালো।
রাজনীতিবিদ অস্কারজয়ী অভিনেতার চেয়েও নিঁখুত অভিনেতা।
– এমন মহান নেতার অকাল প্রয়াণে জাতি মূল্যবান কিছু হারালো যা কোন কিছুর বিনিময়েই পাওয়া সম্ভব না। আমরা ভীষণ আবেগ আপ্লুত। শোকাহত। নেতার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা ও বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করি।
বলতে বলতে কেঁদে ফেলেন মন্ত্রীমহোদয়।
টাইমটিভির সাংবাদিক আবার প্রশ্ন করেন-
আমরা পরবর্তী মূখ্যমন্ত্রী হিসেবে কাকে পাবো বলে আপনি মনে করেন?
পাঞ্জাবিটা টেনে টুনে ঠিক করেন মন্ত্রী মহোদয়। গলায় পেছানো চাদরের ভাঁজটা ঠিক করে নেন আবার। যেন নিজেকেই এই প্রদেশের মূখ্যমন্ত্রী দাবী করছেন।
উত্তরটায় ঘুরেফিরে নিজের দিকেই যাচ্ছে।
লাশ করবে রাখার পর সংবাদসম্মেলন করেন নিজ দলের নেতাকর্মীরা।
জানিয়ে দেন পরবর্তী সংবাদসম্মেলনে বিস্তারিত জানিয়ে দেয়া হবে শুন্যস্থান পূরণে কে আসছেন।
টাইমটিভির শিরোনাম ভাসছে “পরিবর্তী সংবাদ সম্মেলনে জানানো হবে কে হচ্ছেন এই প্রদেশের মূখ্যমন্ত্রী?”
অথচ গতকয়েক ঘন্টার বুলেট নিউজটি ছিলো মুখ্যমন্ত্রী আসলাম খানের নামে।
নেতারা পত্র-পত্রিকার শিরোনামের মতো। পরবর্তী শিরোনাম না হওয়া পর্যন্ত টিভিতে ডিসপ্লে হয় বুলেট নিউজে। পরবর্তী নিউজ কাভার হওয়ার সাথে সাথে আগের নিউজটি চাঁপা পড়ে যায় হকারের গরম খবর চিৎকারে।
নতুন মূখ্যমন্ত্রী কে হবেন জানতে চোখ রাখুন টাইমটিভির পর্দায়।
লেখক: শিক্ষার্থী, সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজ।

শেয়ার করুন




 

 

 

 

© 2017-2020 All Rights Reserved Amadersunamganj.com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
error: Content is protected !!